বার্নাব্যুতে মেসি-রোনালদোর পুর্নমিলনী হচ্ছে না!

ক্যারিয়ারে অনেক বারই মাঠে মুখোমুখি হয়েছেন দুজনে। কখনো বাগ-বিতণ্ডায় জড়িয়েছেন। কখনো বা একে অন্যকে সৌহার্দের হাতও বাড়িয়ে দিয়েছেন। উপরের ছবিটি তারই দলিল। মনের ভেতর যতই প্রতিদ্বন্দ্বিতার আগুন জ্বলুক, বাইরে অন্তত সৌজন্যতা দেখিয়েছেন পুরস্কার বিতরণী মঞ্চেও। অনেকবারই পুরস্কার নিতে গিয়ে লিওনেল মেসি ও ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো বসেছেন পাশাপাশি। করেছেন হাসাহাসি, খুনসুটিও। কিন্তু পাশাপাশি বসে যুগের সেরা দুই ফুটবলার খেলা দেখিননি কখনোই। এবার সেই বিরল দৃশ্য সৃষ্টিরই সুযোগ তৈরি হয়েছিল। কিন্তু রোনালদো বিশ্ববাসীকে সেই দুর্লভ দৃশ্য থেকে বঞ্চিত করলেন। বার্নাব্যুতে মেসির সঙ্গে পুর্নমিলনী ঘটাতে রাজি হননি জুভেন্টাসের পর্তুগিজ সুপারস্টার!

মেসি-রোনালদোর পাশাপাশি বসে খেলা দেখার সুযোগটা তৈরি করেছিল স্পেনের ফুটবল ফেডারেশন। দুই আর্জেন্টাইন ক্লাব বোকা জুনিয়র্স ও রিভারপ্লেটের মধ্যকার পণ্ড হওয়া কোপা লিবার্তোদোরেসের ফাইনালের দ্বিতীয় লেগ ম্যাচটি আর্জেন্টিনা থেকে সরিয়ে আনা হয়েছে স্পেনে! ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে রিয়াল মাদ্রিদের স্টেডিয়াম এস্তাদিও সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে। ম্যাচটা হবে ৯ ডিসেম্বর, রোববার।

গত ২৪ নভেম্বর এই ম্যাচটি হওয়ার কথা ছিল রিভারপ্লেটের মাঠ এস্তাদিও মনুমেন্টাল স্টেডিয়ামে। কিন্তু ম্যাচ শুরুর আগে আগে বোকা জুনিয়র্সের খেলোয়াড়দের বহনকারী গাড়িতে হামলা চালায় রিভারপ্লেটের উগ্র সমর্থকেরা। ভয়াবহ সেই হামলায় আহত হয় বোকা জুনিয়র্সের বেশ কয়েকজন ফুটবলার।

হাতপাতালেও যেতে হয় কয়েকজনকে। ন্যাক্কারজনক ওই হামলার পর ম্যাচটি পণ্ড হয়ে যায়। পরে বোকা জুনিয়র্স আর রিভারপ্লেটের মাঠে খেলতেই রাজি হয়নি। তাই দক্ষিণ আমেরিকা মহাদেশের ফুটবল সংস্থা কনমেবল বাধ্য হয়ে ম্যাচটি আর্জেন্টিনা থেকে সরিয়ে এনেছে বার্নাব্যুতে।

স্বাভাবিকভাবেই আর্জেন্টিনার দুই চিরশত্রু ক্লাবের আগুনে ম্যাচটি নিয়ে বিশ্বজুড়ে তৈরি হয়েছে অন্য রকম উন্মাদনা। বিশেষ এই ম্যাচটি আয়োজনের দায়িত্ব পেয়ে রিয়াল মাদ্রিদ এবং স্পেনের ফুটবল ফেডারেশনও (আরএফ্ফইএফ) বাড়তি উদ্যোগ নিয়েছে ম্যাচটাকে নিয়ে বাড়তি উন্মাদনা সৃষ্টি করার। তার অংশ হিসেবেই সরাসরি মাঠে বসে খেলা দেখার আমন্ত্রণ জানিয়েছিল দুই স্পারস্টার মেসি ও রোনালদোকে। আয়োজকরা চেয়েছিল বার্নাব্যুর প্রেসিডেনশিয়াল বক্সে পাশাপাশি বসে ম্যাচটা দেখুক মেসি-রোনালদো।

নিজ দেশের দুই ক্লাবের ম্যাচ। মেসি হয়তো এমনিতেই যেতেন। তার খেলার দেখার ফুসরতও আছে। কারণ লা লিগায় বার্সেলোনার ম্যাচ ৮ ডিসেম্বর। ৯ ডিসেম্বর তাই ফ্রি মেসি। এর মধ্যে আরএফএফএফ আবার আমন্ত্রণ জানিয়েছে। দুই মিলে মেসি বার্নাব্যুর প্রেসিডেনশিয়াল বক্সে বসেই ম্যাচটি উপভোগ করার পাকা সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। কিন্তু রোনালদো বার্নাব্যুতে ফিরতে রাজি হননি।

কেন? কারণটাও স্পষ্টই। দীর্ঘ ৯টি বছর বার্নাব্যুতে কাটিয়েছেন। সেই ৯ বছরে ক্লাব রিয়ালকে অনেক অনেক সাফল্য এনে দিয়েছেন। জিতেছেন রাশি রাশি শিরোপা। কিন্তু বার্নাব্যু থেকে তার বিদায়টা সুখকর হয়নি। অবিশ্বাস্য সাফল্যের পরও তাকে বিদায় নিতে হয়েছে মনের ক্ষোভ নিয়ে। বেতন-ভাতা বৃদ্ধির বিষয়ে রিয়ালের কর্তাদের সঙ্গে মনোমালিন্যের জের ধরেই তাকে স্বপ্নের বার্নাব্যু ছাড়তে হয়েছে। গত জুলাইয়ে রিয়াল ছেড়ে যোগ দিয়েছেন জুভেন্টাসে।

যেখান থেকে মনের ক্ষোভ নিয়ে চলে গেছেন, এতো তাড়াতাড়িই সেই বার্নাব্যুতে ফিরতে রাজি নন রোনালদো। পর্তুগিজ তারকার পক্ষ থেকে অন্তত এমনটাই বলা হয়েছে। বার্নাব্যুতে আর কখনোই ফিরবেন না, এমন নয়। কিন্তু এখনোর মনের ক্ষোভটা হালকা হয়নি। শুধু রোনালদোর একার নয়। ক্ষোভ আছে রিয়াল সমর্থকদেরও। রিয়াল সমর্থকেরা চায়নি রোনালদো চলে যাক। কিন্তু রোনালদো সমর্থকদের সেই চাওয়া রাখেননি। স্বাভাকিভাবেই তার চলে যাওয়াটা ভালোভাবে নেয়নি রিয়াল সমর্থকেরা। রোনালদোর উপর ক্ষুব্ধ তারা।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.