বাঙালির জীবনযাপনে একুশ

মডেল – জল ; ছবি – জুয়েল

বাঙালির ইতিহাসে একুশ শুধু একটি তারিখ নয়; একুশ হলো একটি চেতনার বীজ। এই চেতনা থেকেই ’৭১-এ আমরা পেয়েছি স্বাধীন বাংলাদেশ। এই গর্বের একুশ হয়েছে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। আবার ভাষার এই মাসজুড়ে বইমেলার আয়োজনটিও দিয়েছে উত্সবের ভিন্ন মাত্রা, হয়েছে বাঙালি লেখক-পাঠকদের প্রাণের মিলনমেলা। পাশাপাশি একুশের চেতনা যোগ হয়েছে আমাদের ফ্যাশনে। তাই তো দেশীয় ফ্যাশন হাউসগুলো প্রতিবছর নানা বৈচিত্র্যময় পোশাক ক্রেতাদের জন্য তৈরি করে। সবমিলিয়ে একুশ এখন পরিণত হয়েছে লাইফস্টাইলে। এই লাইফস্টাইল বাঙালির ঐতিহ্যকে দিন দিন উজ্জ্বল করছে। বাঙালির জীবনযাপনে একুশের প্রভাব নিয়ে এবারের মূল ফিচার।

একুশ কেবল বাংলা ভাষার লড়াই ছিল না। একুশ ছিল বাঙালির সার্বিক মুক্তির সংগ্রাম। বাংলা ভাষা ও বাঙালি সংস্কৃতির অস্তিত্ব রক্ষার সেই লড়াইয়ের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে ছিল শিক্ষা, সমাজ ও অর্থনীতির লড়াইও। একুশ ছিল বাঙালির এগিয়ে যাওয়ার সংগ্রাম। একুশে ফেব্রুয়ারি বর্তমানে ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’। পৃথিবীব্যাপী এ দিনটি পালিত হচ্ছে মাতৃভাষার চর্চা ও মর্যাদাকে সমুন্নত রাখার চেতনায়। একুশে ফেব্রুয়ারিকে কেন্দ্র করে আমরা এক অকৃত্রিম আবেগের সৌধ নির্মাণ করেছি। যার সঙ্গে জীবনযাপনের, বাস্তবতার যোগ সর্বত্র। জীবন এগিয়ে যাচ্ছে, জগত্ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাচ্ছে বিজ্ঞান-প্রযুক্তি। সেইসঙ্গে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

মডেল – জল ; ছবি – জুয়েল

একুশে ফেব্রুয়ারি বাঙালি জাতির এক গৌরব উজ্জ্বল ইতিহাস। তাই তো ফেব্রুয়ারি ভাষার মাস হিসেবে সমগ্র বিশ্বের নিকট পরিচিত। এই মাসে চেতনায় এবং শ্রদ্ধায় অবনত হয় সমগ্র জাতি ও বিশ্বের অন্যান্য রাষ্ট্রসমূহ এবং ভাষাপ্রেমীরা। বাংলাদেশে শিক্ষা, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের যে ধারাবাহিকতার পুনর্বিন্যাস, পুনর্নির্মাণ ও অনুশীলন ইত্যাদি প্রক্রিয়ার চলমানতা রয়েছে, সেই প্রেক্ষিতে ’৫২-এর ভাষা আন্দোলনের পটভূমি ক্রমশই আলোকিত হয়ে উঠছে। লক্ষণীয় যে, এই ফেব্রুয়ারি মাসে পুরো বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে বিপণন ও ঐতিহ্য বিকাশে দেশীয় ফ্যাশন হাউস ও প্রতিষ্ঠানসমূহ একুশের বিষয়বস্তুনির্ভর আমাদের চেতনা জাগানিয়া পোশাক-আশাক ও ফ্যাশন সামগ্রী তৈরি করে যাচ্ছে। যা বিগত বছরগুলোতে জনসাধারণের পৃষ্ঠপোষকতায় ও মিডিয়ার সহযোগিতায় দিন দিন সমৃদ্ধতর হচ্ছে। সাদা ও কালো রঙের সমন্বয়ে তৈরি পোশাক ও অন্যান্য সামগ্রী সংগ্রহের ক্ষেত্রেও থাকে ক্রেতাদের একটি বিয়োগাত্মক দিনের স্মরণগাথা। তাই বিয়োগ-ব্যথার বেদনার্ত রং কালোই মূলত সবক্ষেত্রে প্রাধান্য পেয়ে থাকে। পোশাকে ও অন্যান্য সামগ্রীতে বর্ণমালা, শহীদ মিনার, একুশের পঙক্তিমালা, শহীদদের প্রতিকৃতিও থাকে বিভিন্ন সামগ্রীর অবয়বজুড়ে। এ ছাড়া থাকে বাঙালির চেতনাবাহী বিবিধ বিষয়; যা আমাদের শহীদদের আত্মত্যাগের স্মৃতিকে চোখের সামনে ফুটিয়ে তোলে। ভাষার প্রতি বাঙালির যে টান যে মমত্ববোধ। এই টান ও মমত্ববোধ যেমন উত্কীর্ণ হয় লেখায়, রেখায় এবং দৈনন্দিন জীবন যাপনে; তেমনি ফ্যাশনের ভুবনেও একুশের মর্মার্থকে শ্রদ্ধার সঙ্গে ফুটিয়ে তোলার প্রয়াস থাকে প্রতিবছর, প্রতিনিয়ত গহীন ভালোবাসায়। ভাষার মাস যখন বছর ঘুরে আবেগতাড়িত বাঙালির প্রাঙ্গণে এসে ছায়া ফেলে। ঠিক তার সঙ্গে এসে পাশে দাঁড়ায় ঋতুরাজ বসন্ত। একদিকে শোকার্ত অতীতের শোকগাথার গল্পবুননের গুণগুলো বুকের স্পন্দনে তিরতির করে কাঁপতে থাকে। একইভাবে রঙিন বসন্তের ফাগুন হাওয়ার দোলায়ও দুলে ওঠে বাঙালির হূদয়। অনুভূতিতে জেগে ওঠে এক অন্যরকম আবেশ।

মডেল – জল  ; ছবি – জুয়েল

একদিকে একুশের আবেগমথিত প্রহরের করুণ সুরেলা আবহ ‘রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারির’ প্রাণাবেগকে করে তোলে বিধৃত আর বেদনাপ্লুত। শিল্প, সাহিত্য, সংস্কৃতি, চিত্রকলা, ফ্যাশন তথা শিল্পের প্রতিটি শাখায় রয়েছে একুশে ফেব্রুয়ারির দারুণ প্রভাব। যে প্রভাবের স্পর্শে আলোকিত হয়ে উঠেছে বাংলা কবিতা, গল্প, উপন্যাস, নাটকসহ নানা অঙ্গন। সর্বোপরি প্রতিবছর বাংলা একাডেমি আয়োজন করে মাসব্যাপী বইমেলার। যে বইমেলা আজ বাঙালির প্রাণের মেলারূপে প্রতিটি বাঙালির মনে জায়গা করে নিয়েছে। পাশাপাশি একুশের চেতনাকে ধারণ করে সাংস্কৃতিক অঙ্গনেও চলে নানা আয়োজন।

মডেল – জল ; ছবি – জুয়েল

আফিরন সরকার/বাংলাদেশ টাইমস

Leave A Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.