ফ্যাশন লাইফ স্টাইল

সুন্দর ত্বকের যত্ন

সুন্দর ত্বকের যত্ন। মডেল জারিন ; ছবি তানভির

আজকাল নারীদের প্রায় সবাই খুব সুন্দর করে নিজেকে সাজিয়ে তুলতে জানেন বিভিন্ন ধরনের মেকআপ সামগ্রী ব্যবহার করে। ফাউন্ডেশন, আইশ্যাডো, মাস্কারা, হাইলাইটার আরো কত ধরনের পণ্য ব্যবহার করা হয় সাজগোজ করতে। সাজগোজ করা যত কঠিন, তার চেয়ে কঠিন হলো রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে ঠিকভাবে সেই সাজ তোলা। ত্বক পরিষ্কার ও সুন্দর রাখতে যদিও মেকআপ রিমুভারের গুরুত্ব অপরিসীম, কিন্তু সৌন্দর্যচর্চায় এটি আজো অনেক নারীর কাছেই অবহেলিত। এটি শুধু মেকআপ মোছার একটি উপাদানই নয়, এটি আপনার ত্বককে নিঃশ্বাস নিতে সাহায্য করে। আজ জেনে নেয়া যাক মেকআপ

রিমুভার সম্পর্কে-

মেকআপ পরিষ্কার করা কেন দরকার?
কারণ, এটি ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। মেকআপের ছোট ছোট কণা আপনার ত্বকের গভীরে ঢুকে বিভিন্ন সমস্যা সৃষ্টি করে ও ত্বকের সৌন্দর্য নষ্ট করে দেয়। ত্বকে দাগ, ব্রণ ও অন্যান্য চর্মরোগের জন্ম দেয়। এ ছাড়াও মেকআপ ভালোভাবে না তুললে আপনার ত্বক বুড়িয়ে যায় সহজেই। সঠিক মেকআপ রিমুভার ব্যবহারের ফলে ব্রণ, লালচে ভাব, ব্ল্যাকহেডস ও অন্যান্য বিভিন্ন চর্মরোগের ঝুঁকি কমে। মেকআপ রিমুভার ত্বকের মরা কোষ ঝরিয়ে নতুন কোষ জন্মাতে সাহায্য করে।

সুন্দর ত্বকের যত্ন। মডেল জারিন ; ছবি তানভির

ত্বক কখন পরিষ্কার করবেন
মেকআপের প্রয়োজন শেষ হলে সাথে সাথেই ত্বক পরিষ্কার করে ফেলা ভালো। তবে সেটি সম্ভব না হলে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে অবশ্যই মেকআপ তুলতে হবে। কারণ রাতে ত্বক নিঃশ্বাস নেয়। লোমকূপগুলোর মুখ খুলে যায়। মেকআপ করা অবস্থায় ঘুমাতে গেলে পুরো মেকআপ ত্বকের গভীরে ঢুকে পরে ত্বকের খুব বাজে অবস্থা সৃষ্টি করতে পারে। তাই কোনো অবস্থাতেই মেকআপ নিয়ে ঘুমাতে যাওয়া যাবে না।

মেকআপ কিভাবে তুলতে হবে
মাঝে মধ্যে এমন হয় যে যত চেষ্টাই করা হোক না কেন, মেকআপের কিছু অংশ ত্বকে থেকেই যায়। ত্বক পুরোপুরি পরিষ্কার হতেই চায় না। এমন সমস্যা এড়াতে মেকআপ তুলতে নিচের ধাপগুলো মেনে চলুন-

সময় নিয়ে মেকআপ তুলুন : মেকআপ রিমুভার লাগানোর পর সেটা ত্বকে বসতে দিন। কয়েক মিনিট সময় দিন তাকে তার কাজ করার জন্য। বিশেষ করে চোখের মেকআপ তোলার ক্ষেত্রে মোটেও তাড়াহুড়া করা যাবে না। মেকআপ রিমুভার লাগিয়ে কিছুক্ষণ রাখলে তা আপনার মুখের ওপর লেগে থাকা মেকআপকে নরম করবে, ফলে তা সহজেই উঠে আসবে। ত্বক বেশি ঘষতেও হবে না।
ফেসওয়াশ এবং পানিও জরুরি : শুধু ফেশিয়াল ওয়াইপ্স বা মেকআপ রিমুভার দিয়ে মেকআপ তুলে ফেলেই আপনার দায়িত্ব শেষ হয়ে যায় না। মেকআপ মুছে ফেলার পর আপনার ত্বকের জন্য উপযুক্ত কোনো ফেসওয়াশ দিয়ে ভালোভাবে মুখ ধুতে হবে। মুখের ত্বক পরিষ্কারে কখনোই সাবান বা শাওয়ার জেল ব্যবহার করা যাবে না। কারণ, এসব পণ্য মুখের ত্বকের জন্য তৈরি করা হয়নি।

সুন্দর ত্বকের যত্ন। মডেল জারিন ; ছবি তানভির

চোখের পাতা ও পাপড়ি : চোখের পাপড়ির লাইনটি পরিষ্কার করা সবচেয়ে কঠিন। আর এখানেই কাজল, মাস্কারা ও আইলাইন জমে থাকে সবচেয়ে বেশি। ফলে এই অংশটি শক্ত হয়ে যায় বা কালো দাগ বসে যায়। অনেকে ওয়াটারপ্রুফ আইলাইনার ও মাস্কারা ব্যবহার করেন, ফলে এই অংশটি পরিষ্কার করা আরো কঠিন হয়ে পড়ে। তাই অবশ্যই চোখের মেকআপ তোলার ক্ষেত্রে আরো বেশি সচেতন হতে হবে। যেহেতু এই অংশটি বেশ চিকন ও স্পর্শকাতর, এই জায়গা পরিষ্কারের ক্ষেত্রে কটনবাড ব্যবহার করা ভালো। কটনবাডে মেকআপ রিমুভার বা তেল লাগিয়ে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে ভালোভাবে চোখের কোণা ও পাপড়ির লাইন পরিষ্কার করতে হবে।

কপালের হেয়ারলাইনের দিকে দৃষ্টি দিন : অনেকেই মুখ পরিষ্কারের সময় কপালের হেয়ার লাইনের দিকটা ভুলে যান। এটি বড় একটি ভুল। কারণ এই জায়গা পরিষ্কার না করলে কপালজুড়ে ফুসকুঁড়ি দেখা দেয়। তাই মুখ ধোয়ার আগে চুল পেছনে টেনে বেঁধে নিন। তারপর কপালের হেয়ারলাইনসহ পুরো মুখের মেকআপ তুলে ফেলুন।

সুন্দর ত্বকের যত্ন। মডেল জারিন ; ছবি তানভির

কটনবলের চেয়ে কটনপ্যাড ভালো : মেকআপ তোলার ক্ষেত্রে কটনবল তেমন ভালো কাজ করে না। মেকআপ তোলার সময় কটনবলের সুতা ত্বকের সাথে লেগে থাকে। কটনপ্যাডের ক্ষেত্রে এই সমস্যায় পরতে হয় না। এটি অনেকটা কাপড়ের টুকরার মতো কাজ করে। তাই মেকআপ তোলার ক্ষেত্রে সব সময় কটনপ্যাড ব্যবহার করুন, যেকোনো প্রসাধনীর দোকানেই কটন প্যাড পাওয়া যায়।

ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন : মেকআপ তুলে মুখ ভালোভাবে ধুয়ে নেয়ার পর তোয়ালে দিয়ে আলতো করে চেপে মুখ মুছে নিন। তারপর ত্বকের উপযোগী ময়েশ্চারাইজার লাগান। ত্বক শুষ্ক হোক বা তৈলাক্ত, ময়েশ্চারাইজার লাগাতেই হবে। এত গভীরভাবে পরিষ্কার করার পর ত্বকের আর্দ্রতা কমে যায়, তাই ত্বক ময়েশ্চারাইজ না করলে ত্বক ফেটে যেতে পারে বা রুক্ষ হয়ে যেতে পারে। ঠোঁটে লাগান লিপ বাম বা পেট্রোলিয়াম জেলি, আর চোখে লাগান আইক্রিম।

ঘরেই তৈরি করুন মেকআপ রিমুভার
হাতের কাছেই আছে এমন অনেক উপাদান যা দিয়ে খুব কার্যকর মেকআপ রিমুভার তৈরি করে ফেলা যায়। এ ছাড়াও অনেকে আছেন মেকআপ করেন খুব কম, হয়তো বছরে এক দু’দিন। তাই মেকআপ রিমুভার কিনে অযথা টাকা নষ্ট করার কোনো মানে হয় না। তাই নিচের পদ্ধতিগুলো দেখে তৈরি করে নিন আপনার মেকআপ রিমুভার।
তেল : তেল দিয়ে খুব সহজেই মেকআপ তোলা যায়। নারিকেল তেল, জলপাই তেল, ক্যাস্টর অয়েল ও কাঠবাদাম তেল মেকআপ রিমুভার হিসেবে খুবই ভালো। প্রথমে তেল হাতের তালুতে নিয়ে পুরো মুখে মাখুন ২-৩ মিনিট ধরে। এরপর কটনপ্যাড দিয়ে মুছে ফেলুন। মেকআপ উঠে আসবে খুব সহজে। তারপর আবার তেল মাসাজ করুন, তারপর একটি ছোট তোয়ালে গরম পানিতে চুবিয়ে নিংড়ে নিয়ে সেটা দিয়ে পুরো মুখের তেল মুছে ফেলুন। সব শেষে ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। তবে ব্রণপ্রবণ ত্বক যাদের তারা তেল থেকে দূরেই থাকবেন।

সুন্দর ত্বকের যত্ন। মডেল জারিন ; ছবি তানভির

বিডি.টাইমস/এইচ.আর

এই বিভাগের আরও খবর

ডিমান্ড ফ্যাশন হাউজের ৫ম জন্মবার্ষিকী উদযাপন

তৈলাক্ত ত্বকের যত্ন নেওয়ার উপায়

জেনে নিন চুল পড়া রোধের প্রাকৃতিক উপায়