স্টাডিনেট’র ব্রান্ড আম্বাসেডর হলেন নানজীবা

স্টাডিনেট’র ব্রান্ড আম্বাসেডর হলেন নানজীবা

বাংলাদেশ টাইমস বয়স মাত্র ১৮ র গন্ডিতে পৌছালো কিন্তু তিনি একাধারে ট্রেইনি পাইলট, সাংবাদিক, নির্মাতা, উপস্থাপিকা, লেখক , ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর, বিএনসিসি ক্যাডেট অ্যাম্বাসেডর, ইউনিসেফ বাংলাদেশের তরুণ প্রতিনিধি এবং বিতার্কিক।বলছি বহুমুখী প্রতিভার নানজীবা খান এর কথা।
সম্প্রতি তিনি আস্ট্রেলিয়ান শিক্ষা বিষয়ক সংস্থা ‘স্টাডিনেট’ এর বাংলাদেশ শাখার ব্রান্ড আম্বাসেডর হিসেবে নিযুক্ত হয়েছেন।
নানজীবা খান বলেন, ” সুশিক্ষিত মানুষ গড়ার লক্ষ্যে বাংলাদেশী মেধাবী শিক্ষার্থীদের আস্ট্রেলিয়ায় উচ্চশিক্ষার জন্য সহযোগিতাকরে আসছে প্রতিষ্ঠানটি। আমি নিজেও একজন শিক্ষার্থী।হোক সেটা বিমানচালনা কিংবা মিডিয়ার কোনো কাজ বরাবরের মতইশিখতে পছদ করি। তাই শিক্ষাবিষয়ক এমন একটি সংস্থার আছে যুক্ত হতে পেরে ভালো লাগছে।
বর্তমান ব্যস্ততা সম্পর্কে তিনি বলেন আগামী ৩০ জানুয়ারি চট্টগ্রাম ও ৮ ফেব্রুয়ারি অস্ট্রেলিয়ান পড়তে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীদের জন্যরাজধানীর লেকশর হোটেলে স্টাডিনেট আয়োজিত ‘অস্ট্রলিয়ান এডুকেশন ইনফরমেশন ডে’ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। সেটি নিয়ে ব্যস্তসময় পার করছি।

স্টাডিনেট’র ব্রান্ড আম্বাসেডর হলেন নানজীবা

এছাড়াও তিনি “অ্যারিরাং ফ্লাইং স্কুল” এ “ট্রেইনি পাইলট” হিসেবে অধ্যয়ন করছেন।স্বপ্ন আকাশ ছোঁয়ার।৬ ঘন্টা ১৫ মিনিট নিজে সেসনা-১৫২ এয়ারক্রাফট দিয়ে আকাশে উড়েছেন।
শিশুকাল থেকেই অর্জনের ঝুলি ভরা শুরু হয়েছে। ছবি আঁকায় আন্তর্জাতিক পুরষ্কার পাওয়ার মধ্য দিয়েই যাত্রা শুরু হয়। “ইউথ অ্যাচিভমেন্ট “আলোকিত নারী সম্মাননা স্মারক”, জিনিয়াস আওয়ার্ড, প্রথম প্রামাণ্যচিত্র ‘সাদা কালো’ পরিচালনারজন্য ‘ইউনিসেফের মীনা মিডিয়া অ্যাওয়ার্ড’সহ নানা পুরস্কার অর্জন করেছেন । স্কুল ও কলেজ জীবনে বিতার্কিক হিসেবে অর্জনকরেছেন বেশ কিছু জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক পুরস্কার। পেয়েছেন উপস্থিত ইংরেজি বক্তৃতায় বিএনসিসি ও ভারত্বেশ্বরী হোমসেরপ্রথম পুরস্কার।

You might also like

Leave A Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.