জেলার খবর

বাংলাদেশ উপকূল অতিক্রম করছে আম্পান

অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় আম্পান বাংলাদেশ উপকূল অতিক্রম শুরু করে দিয়েছে। বুধবার বিকাল চারটা থেকে এটি সাগর উপকূলের পূর্ব দিকে সুন্দরবন ঘেঁষা পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশ দিয়ে অতিক্রম করছে। বাংলাদেশের উপকূলে এসে গতিবেগ কিছুটা কমেছে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

বুধবার সন্ধ্যায় ৬টায় আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, আম্পানের প্রথম ধাক্কা এসেছে বিকাল ৪টায়। দ্বিতীয় ধাক্কা আসবে রাত ৮টায়।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের মতে, একটি ঘূর্ণিঝড় যখন সাগর থেকে উপকূল অতিক্রম করে স্থলভাগে প্রবেশ করে তখন কিছু সময় তাণ্ডব চালানোর পর সবকিছু নীরব হয়ে যায়। এর কয়েক ঘণ্টা পর আবারও তাণ্ডব শুরু হয়ে যায়। মানুষ প্রথম ধাক্কার পর মনে করে ঘূর্ণিঝড় শেষ হয়ে গেছে। সবাই বাইরে বের হয়। ফলে দ্বিতীয়বারের ধাক্কায় হতাহতের ঘটনা ঘটে থাকে। তাই সবাই সাবধান থাকতে বলা হচ্ছে।

এর আগে বিকালে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের উপকূলে আঘাত হানে আম্পান। এতে ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়, গাছাপালা ও ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। তবে হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

আবহাওয়ার সর্বশেষ পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, উত্তরপশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন উত্তরপূর্ব বঙ্গোপসাগর এবং পশ্চিমমধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় ‘আম্পান’ আরও উত্তর-উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে বর্তমানে একই এলাকায় (২১.৫°উত্তর অক্ষাংশ এবং ৮৮.১°পূর্ব দ্রাঘিমাংশ) অবস্থান করছে।

এটি আজ বিকাল ৩টায় চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দর থেকে ৪২০ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৪৩০ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে, মোংলা সমুদ্র বন্দর থেকে ২০০ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ২৫০ কিলোমিটার দক্ষিণপশ্চিমে অবস্থান করছিল।

এটি আরও উত্তর- উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে আজ রাত ৮টার মধ্যে সাগর দ্বীপ এর পূর্বপাশ দিয়ে পশ্চিমবঙ্গ-বাংলাদেশ উপকূল অতিক্রম শুরু করতে পারে।

ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৮৫ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ১৮০ কিলোমিটার যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ২০০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের কাছে সাগর খুবই বিক্ষুব্ধ রয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে বরগুনার রিফাত হত্যা মামলার প্রধান আসামি নয়ন বন্ড নিহত

সন্তানের খোঁজ নিতে স্কুলে যাওয়া মাকে ছেলেধরা সন্দেহে পি’টিয়ে হ’ত্যা

এবার মিয়ানমার থেকে রোহিঙ্গাদের পর আসছে বৌদ্ধরা